1. admin@dainikmanobadhikarsangbad.com : admin :
জাটকা নিধন প্রতিরোধ অভিযানে নৌ পুলিশ কর্তৃক ৩১,৬১,০০০ মিটার অবৈধ কারেন্ট জাল জব্দ,৭ জন আটক - দৈনিক মানবাধিকার সংবাদ
১লা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ| ১৬ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ| শরৎকাল| শনিবার| রাত ১০:৪৪|

জাটকা নিধন প্রতিরোধ অভিযানে নৌ পুলিশ কর্তৃক ৩১,৬১,০০০ মিটার অবৈধ কারেন্ট জাল জব্দ,৭ জন আটক

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ
  • Update Time : সোমবার, মার্চ ১৪, ২০২২,
  • 196 Time View

জাটকা নিধন প্রতিরোধ অভিযানে নৌ পুলিশ কর্তৃক ৩১,৬১,০০০(একত্রিশ লক্ষ একষট্টি হাজার) মিটার অবৈধ কারেন্ট জাল জব্দ এবং ৮৮০(আটশত আশিঁ) কেজি জাটকা উদ্ধার, ০৭ জন আসামী গ্রেফতার।

নদীমাতৃক এই দেশের মৎস্য সম্পদকে রক্ষা করার প্রয়াসে নৌ পুলিশ বাংলাদেশ ১ মার্চ হতে ৩০ জুন পর্যন্ত জাটকা ইলিশ নিধন প্রতিরোধ কার্যক্রমের অংশ হিসেবে অভিযান পরিচালনা করে থাকে।

আজ সোমবার সাথী বাংলাদেশ নৌ পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স এর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ট্রেনিং,লিগ্যাল এন্ড মিডিয়া)
এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এরই ধারাবাহিকতায় গত ১৩ মার্চ ২০২২ খ্রিঃ তারিখে চাঁদপুর সদর নৌ থানা, কালিগঞ্জ নৌ ফাঁড়ি, হিজলা নৌ ফাঁড়ি, নীলকমল নৌ ফাঁড়ি, মোহনপুর নৌ ফাঁড়ি, সুরেশ্বর নৌ ফাঁড়ি, মুক্তারপুর নৌ ফাঁড়ি কর্তৃক বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে ৩১,৬১,০০০(একত্রিশ লক্ষ একষট্টি হাজার) মিটার অবৈধ কারেন্ট জাল জব্দ করা হয় যার আনুমানিক মূল্য- ৫,৬০,৮০,০০০(পাঁচ কোটি ষাট লক্ষ আশিঁ হাজার) টাকা, ৮৮০ কেজি নিষিদ্ধ ঘোষিত জাটকা মাছ উদ্ধার করা হয় যার আনুমানিক মূল্য- ২,৬৪,০০০(দুই লক্ষ চৌষট্টি হাজার) টাকা, ৩টি জাটকা মাছ ধরার নৌকা যার আনুমানিক মূল্য- ১,৭০,০০০(এক লক্ষ সত্তর হাজার) টাকা আটক করা হয় এবং সরকার কর্তৃক নিষিদ্ধ ঘোষিত অবৈধ জাল দিয়ে জাটকা মাছ ধরার অপরাধে ৭ জন আসামীকে গ্রেফতার করা হয়।

উদ্ধারকৃত জাটকা মাছ স্থানীয় এতিমখানা এবং গরীব-দুঃখীদের মাঝে বিতরন করা হয়েছে। নৌকা সংশ্লিষ্ট ফাঁড়ির হেফাজতে রয়েছে। আসামীদের বিরুদ্ধে মৎস্য আইনে ৩ টি মামলা রুজু করা হয়েছে।

জাটকা নিধন প্রতিরোধ অভিযান পরিচালনা প্রসঙ্গে নৌ পুলিশ প্রধান বাংলাদেশ পুলিশের অতিরিক্ত আইজি জনাব মোঃ শফিকুল ইসলাম বিপিএম(বার), পিপিএম বলেন,“ গত বছরের মতো এবছরও নৌ পুলিশ কর্তৃক এ সকল ধারাবাহিক অভিযানের ফলে একদিকে যেমন ইলিশের উৎপাদন বৃদ্ধি পাবে তেমনি অন্যদিকে জনসাধারনের কাছে ইলিশ সহজলভ্য হওয়ার পাশাপাশি বাংলাদেশের অর্থনীতিতে অবদান রাখবে। কাংক্ষিত লক্ষ্যে না পৌঁছা পর্যন্ত বাংলাদেশের GI(Geographical Indicator) হিসেবে খ্যাত বাংলার রুপালি ইলিশ সংরক্ষনে নৌ পুলিশের এ অভিযান অব্যাহত থাকবে।”

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি। © প্রকাশক কতৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত -২০২২