1. admin@dainikmanobadhikarsangbad.com : admin :
হারিয়ে যাওয়ার ৪১ বছর পর একলিমার খোঁজ মিললো পাকিস্থানে - দৈনিক মানবাধিকার সংবাদ
২৮শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ| ১৩ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ| শরৎকাল| বুধবার| সন্ধ্যা ৬:৪২|
শিরোনামঃ
তালায় যুবলীগের আয়োজনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৬তম জন্মদিন উপলক্ষে দোয়া অনুষ্ঠিত:: ইউপি চেয়ারম্যান আজিজুলের বিরুদ্ধে মিথ্যাচারের প্রতিবাদ সমাবেশ রামগড়ে উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে সম্প্রীতি সমাবেশ অনুষ্ঠিত খাগড়াছড়িতে ফারিয়ার প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি : মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করা আমাদের সকলের দায়িত্ব : মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী তালা নব নির্মিত অফিসার্সক্লাব উদ্বোধন করলেন এমপি মুস্তফা লুৎফুল্লাহ তালায় ১৯৪ পূজা মন্ডপে সরকারি অনুদান বিতরণ প্রতি মন্ডপে থাকছে সিসি ক্যামেরা! দুর্গাপূজায় নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পুলিশ কর্মকর্তাদের প্রতি নির্দেশ আইজিপির সেনাবাহিনীর বহরে যুক্ত হলো দ্বিতীয় Casa C-295W ট্রান্সপোর্ট এয়ারক্রাফট। পঞ্চগড়ে নৌকা ডুবে নারী-শিশুসহ ২৪ জনের মৃত্যু

হারিয়ে যাওয়ার ৪১ বছর পর একলিমার খোঁজ মিললো পাকিস্থানে

তালা প্রতিনিধিঃ
  • Update Time : সোমবার, আগস্ট ১, ২০২২,
  • 122 Time View

স্বামীর মৃত্যুর পর মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে ফেলে ছিলেন তিন সন্তানের জননী একলিমা বেগম।তিনি সাতক্ষীরার তালা উপজেলার খলিলনগর ইউনিয়নের গঙ্গারামপুর গ্রামের মৃত ইসমাইল শেখের মেয়ে।

ভারসাম্যহীন একলিমা ১৯৮১ সালের কোন একদিন হঠাৎ নিখোঁজ হন। সে সময় পরিবারের সদস্যরা বহু খোঁজাখুঁজি করেও সন্ধান পায়নি তার।অবশেষে দীর্ঘ ৪১ বছর পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের কল্যাণে সন্ধান মিলেছে তাঁর। বর্তমানে তিনি পাকিস্থানে রয়েছেন বলে জানা গেছে।কিন্তু কিভাবে তিনি সেখানে গেলেন সে কথা বলতে পারছেন না কেউই। একলিমা শুধু বলতে পারছেন তার বাবা-মাসহ ভাই ও বাংলাদেশের যশোর, তালা, কছিকাটা, কপিলমুনি ও তার নিজ গ্রাম গঙ্গারামপুরের নাম ।
বর্তমানে পাকিস্থানের শিয়ালকোটের দিলওয়ালীতে পরিবারের সাথে অবস্থানরত একলিমা মৃত্যুর আগে হলেও একবার নিজ মাতৃভূমি বাংলাদেশে আসার ইচ্ছা পোষণ করনে। তার সেই ইচ্ছা পুরন করতে তার সন্তানেরা একলিমার একটি ভিডিও সাক্ষাতকার গ্রহন করেন। সেই ভিডিও সাক্ষাতকারটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে যশোরের একটি গ্রুপে পোস্ট করেন তার সন্তানেরা ।
যশোরের গ্রুপে পোস্ট করা ভিডিওটি চোখে পড়ে একলিমা বেগমের বড় ভাই মৃত মকবুল শেখের ছেলে মোঃ জাকিরায়া শেখের। ভিডিওতে একলিমার বলা নামগুলো তার দাদা-বাবা ও চাচাদের সাথে মিলে যাওয়ায় তিনি বিষয়টি নিয়ে বাড়িতে আলোচনা করেন এবং ভিডিও দেখিয়ে নিশ্চিত হন যে ভিডিও’র একলিমা বেগমই তার হারিয়ে যাওয়া ফুফু। এরপর তারা পারিবারিকভাবেই ভিডিও কলে যোগাযোগ করেন একলিমার সাথে।
একলিমা বেগমের ছোট ভাই ইব্রাহিম শেখ (৫০) বলেন, সেসময় আমাদের অনেক অভাব ছিল। স্বামী মারা যাওয়ায় মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে বোনটি কোথায় হারিয়ে গিয়েছিলো সেটা তার জানা ছিলনা। সে সময় পরিবারের পক্ষ থেকে অনেক খোঁজাখুজি করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি। সম্প্রতি ফেসবুকের মাধ্যমে তার খোঁজ পেয়েছি।বর্তমানে সে পাকিস্থানের শিয়ালকোটের দিলওয়ালীতে আছে।তবে কীভাবে তার বোন পাকিস্থানে গিয়েছে সেটা তার জানা নেই। এখন তিনি চান তার বোন তাদের কাছে ফিরে আসুক।
একলিমার বড় ভাই মৃত মকবুল শেখের ছেলে মোঃ জাকিরায়া শেখ বলেন, কিছু দিন আগে ফেসবুকের মাধ্যমে ফুফরু খোঁজ পাই। তারপর থেকে বাড়ির সবার সাথে নিয়মিত কথা হচ্ছে। ফুফুও চান গ্রামের বাড়ীতে আসতে। এজন্য তাদের কাছে ইনভাইটেশন লেটার পাঠানো হয়েছে। এখন বাংলাদেশ ও পাকিস্থান এ্যাম্বাসি সহযোগিতা করলে তার ফুফু বাংলাদেশে তার গ্রামের বাড়ীতে আসতে পারবেন।
এসময় তিনি আরও বলেন, ফুফুর সাথে কথা বলে জানতে পেরেছি তিনি পাকিস্থানের একটি সেল্টার হোমে ছিলেন। সেখানে মুহাম্মদ সিদ্দিক নামে একজনের সাথে তার পরিচয় হয় এবং পরে তারা বিয়ে করেন। মুহাম্মদ সিদ্দিক কয়েকবছর আগে মারা গিয়েছেন। সেখানে তাদের পরিবারে দুটি ছেলে এবং দুটি মেয়ে রয়েছে। আমরা চাই তারাও এখানে বেড়াতে আসার সুযোগ পাক। এজন্য আমরা সবধরনের চেষ্টা চালাচ্ছি।
এদিকে বাংলাদেশে একলিমা বেগমের প্রথম ঘরের এক ছেলে ও দুই মেয়ে রয়েছে । মেয়ে দুটি এখন স্বামীর সংসারে। আর ছেলে হেকমত আলী ঢাকার একটি কারখানায় কাজ করেন ।
মোবাইলে হেকমত আলীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমি ছোট বেলায় পিতাকে হারিয়েছি। উনার কবরটা এখনও আমাদের বাড়ি আছে।পিতার মৃত্যুর পর মা মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে কোথায় চলে গিয়েছিল তা জানি না।মা আমার বেঁচে আছে কিনা তাও জানতাম না। ছোট বেলা থেকে মায়ের আদর  ভালোবাসা থেকে বঞ্চিত ছিলাম।এত বছর পরে মায়ের খবর পাইছি,আপনারা আমার মাকে ফিরিয়ে এনে দেন।আমি তারে সারাজীবন দেখে রাখবো।

তালা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আবু জিহাদ ফখরুল আলম খান বলেন, ঘটনাটি আমাকে কেউ জানায় নি। তবে এমন ঘটনার বিষয়ে কাজ করার জন্য অনেক সংস্থা রয়েছে। থানায় যোগাযোগ করলে একলিমার দেশে আসার বিষয়ে সার্বিক সহযোগিতা করা হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি। © প্রকাশক কতৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত -২০২২